রাত ৪:১৭ - ২৮শে মে, ২০২০ ইং

সৌদিতে করোনায় লোহাগাড়ার যুবকের মৃত্যু

সৌদিতে করোনায় লোহাগাড়ার যুবকের মৃত্যু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সৌদি আরবে মৃত্যু হয়েছে মো. হাসান (৩৮) নামে এক যুবকের। তিনি লোহাগাড়ার বড়হাতিয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ চাকফিরানি দুর্লভের পাড়ার মো. লিয়াকত আলীর ছেলে।

গত সোমবার বিকালে (সৌদি আরবের সময়) মদিনার উহুদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

আজ মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) দুপুরে মুঠোফোনে প্রবাসী হাসানের মৃত্যুর খবর পাওয়ার পর স্বজনরা শোকাহত হয়ে পড়েন।

লোহাগাড়ার বড়হাতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান এমডি জুনাইদ বলেন, ‘সৌদি আরবের মদিনায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আমার ইউনিয়নের চাকফিরানি দুর্লভের পাড়ার এক যুবক মারা যাওয়ার বিষয়টি তার পরিবারের কাছে শুনেছি।’

প্রবাসী মো. হাসানের ছোট ভাই মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘২০০০ সালের শেষের দিকে আমার বড় ভাই সৌদি আরবে যান। শুরু থেকে মদিনায় একটি বোরকার দোকানে চাকরি করতেন। সৌদি আরবে যাওয়ার পর থেকে তিনি ৭-৮ বার দেশে এসেছিলেন। সর্বশেষ দেশে এসেছিলেন গত দেড় বছর আগে।’

হেলাল উদ্দিন আরো জানান, গত এক সপ্তাহ আগে সৌদি আরব থেকে আমার ফুফাতো ভাই মো. রফিক ফোন করে বড় ভাই হাসানের অসুস্থতার কথা জানান। এরপর থেকে তাদের কারো সাথে কোনো ধরনের যোগাযোগ করতে পারিনি। আজ দুপুরের দিকে ফুফাতো ভাই রফিক ফোন করে জানান, বড় ভাই হাসান করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।’

সৌদি আরব থেকে মো. হাসানের ফুফাতো ভাই মো. রফিক মুঠোফোনে জানান, জ্বর ও সর্দি-কাশি নিয়ে হাসান গত ২০ মার্চ মদিনার আল মিকাত হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানে ভর্তির ৩ দিন পর ডাক্তাররা জানান হাসান করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এরপর তাকে মদিনার উহুদ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত সোমবার বিকালে হাসান মারা যান।

তিনি আরো বলেন, ‘আল মিকাত হাসপাতালে করোনা শনাক্ত হওয়ার পর উহুদ হাসপাতালে নেয়ার বিষয়টি আমি জানতাম। মৃত্যুর বিষয়টি আমি জানতাম না। আমাদের কফিল আজ মঙ্গলবার সকালে ফোন করে আমাকে জানিয়েছেন। তার লাশ কখন কোথায় দাফন করা হবে সেই বিষয়ে এখনো কিছু বলেননি।’

 



-->