দুপুর ১২:৪৭ - ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

সিডিএ’র চলমান ১০ প্রকল্প নিয়ে দোভাষের সাংবাদিক সম্মেলন

সিডিএ’র চলমান ১০ প্রকল্প নিয়ে দোভাষের সাংবাদিক সম্মেলন

চট্টলা ডেস্ক

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) গ্রহণ করা ১০টি চলমান প্রকল্পের অগ্রগতি  জানিয়ে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান  জহিরুল আলম দোভাষ সাংবাদিক  সম্মেলন করেছেন।

আজ শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সিডিএ  ভবনে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি  সাংবাদিকদের কাছে বন্দরনগরী চট্টগ্রামের উন্নয়নে সংস্থাটির চলমান প্রকল্পগুলোর অগ্রগতি নিয়ে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন।

এসময় জহিরুল আলম দোভাষ বলেন, আমি দায়িত্ব নেওয়ার সময় পতেঙ্গা থেকে ফৌজদারহাট পর্যন্ত সিটি আউটার রিং রোড প্রকল্পের সড়কটি ছিলো পুরো মাটির। সড়কটি আমি এখন কার্পেটিং করে টোল রোড দিয়ে গাড়ি চলাচলের উপযোগী করেছি। এখন পর্যন্ত ৯২ শতাংশ কাজ শেষ হয়ে গেছে এই প্রকল্পের। বাকি কাজ ৬ মাস থেকে ১ বছরের মধ্যে শেষ হবে।

তিনি বলেন, কর্ণফুলী নদীর তীর বরাবর কালুরঘাট সেতু থেকে চাক্তাই খাল পর্যন্ত সড়ক কাম বাঁধ নির্মাণের একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। এই প্রকল্পের প্রায় ২৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে।

দোভাষ বলেন, লালখান বাজার থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে তৈরির প্রকল্প নেওয়া হয়। মাঝখানে সেটা আটকে যায়। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর আবার শুরু করেছি। ইতোমধ্যে প্রায় ১০ কিলোমিটার পর্যন্ত এলাকায় প্রাথমিক কাজ শেষ হয়েছে। সবমিলিয়ে এই প্রকল্পের অগ্রগতি প্রায় ৩৬ শতাংশ।

সিডিএ চেয়ারম্যান বলেন, চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনকল্পে খাল পুন: খনন, সম্প্রসারণ, সংস্কার ও উন্নয়নের কাজ চলছে। সিডিএ’র মাধ্যমে প্রকল্পটি সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোর করছে। এ প্রকল্পে ৩৫ শতাংশ আর্থিক অগ্রগতি এবং ৫০ শতাংশ ভৌতি অগ্রগতি হয়েছে।

‘এই কাজটিও বন্ধ ছিলো। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর আবার শুরু করেছি। গত এক বছরে আমরা অনেকদূর এগিয়ে গেছি। যার কারণে এবার চট্টগ্রাম শহরে জলাবদ্ধতা হয়নি। কিছু জায়গায় জোয়ারের পানি উঠেছে। স্লুইচ গেট বন্ধ করে দিলে সেটার সমাধানও হয়ে যাবে। ’

দোভাষ বলেন, বায়েজিদ বোস্তামি থেকে ফৌজদারহাট পর্যন্ত বাইপাস সড়ক হয়েছে। এই কাজের আর্থিক অগ্রগতি ৮১ শতাংশ। ভৌত অগ্রগতি ৯০ শতাংশ। এছাড়া বাকলিয়া এক্সেস রোড নির্মাণ প্রকল্পের কাজে ৮৩ শতাংশ ভৌত অগ্রগতি হয়েছে। আর্থিক অগ্রগতি হয়েছে ৬০ শতাংশ।

 

সিডিএ চেয়ারম্যান বলেন, রাজস্ব খাত থেকে আমরা সল্টগোলায় একটি শপিং মলসহ আধুনিক বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ করছি। এই শপিং মলের ৯৭ শতাংশ ভৌত অগ্রগতি শেষ হয়েছে। আর্থিক অগ্রগতি প্রায় ৯০ শতাংশ।  

তিনি বলেন, নাসিরাবাদে একটি সিডিএ স্কয়ার ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্পের কাজ চলছে। লটারির ভিত্তিতে এখানে ফ্ল্যাট দেওয়া হবে। এই প্রকল্পের আর্থিক অগ্রগতি ২৭ শতাংশ। আর ভৌত অগ্রগতি ৪৫ শতাংশ। এছাড়াও দেওয়ান হাট পোস্তার পাড় এলাকায় একটি ১০ তলা বিশিষ্ট ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্পের কাজ চলছে। এই প্রকল্পের আর্থিক অগ্রগতি ৮৩ শতাংশ। আর ভৌত অগ্রগতি ৮৪ শতাংশ।

দোভাষ বলেন, অনন্যা উপশহর এলাকা তৈরি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। সেটা আমাদেরকেই বাস্তবায়ন করতে হবে। আমরা ব্যাংকের সঙ্গে কথা বলে টাকা পেলে, জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে ভূমি অধিগ্রহণ করবো। এখন জায়গা অধিগ্রহণ করার জন্য যৌথ জরিপ চলছে।

চট্টগ্রাম শহর নিয়ে সিডিএ নতুন মাস্টার প্ল্যান তৈরি করছে জানিয়ে  জহিরুল আলম দোভাষ বলেন, চট্টগ্রাম শহর নিয়ে মাস্টার প্ল্যান তৈরির কাজ শীগ্রই শুরু হবে। মাস্টার প্ল্যান তৈরির কাজ এখন প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

সাংবাদিক  সম্মেলনে উপস্থিত সেনাবাহিনীর  ৩৪ ইঞ্জিনিয়ার কনসট্রাকশন বিগ্রেডের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক কর্নেল আবুল হাসনাত মো. সায়েম, সিডিএ’র প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি শাহীনুল ইসলাম খান সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন