সন্ধ্যা ৬:১৯ - ২৬শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

নিত্য পণ্যের দাম বেড়েছে

নিত্য পণ্যের দাম বেড়েছে
 মোটা চাল, ডাল, চিনি, সয়াবিন তেল, আলু, আটা ও ময়দাসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় ৯ টি পণ্যের দাম বেড়েছে। অপরদিকে এর বিপরীতে দাম কমেছে সরু চাল, পেঁয়াজ, রসুন, ডিম, ব্রয়লার মুরগি ও ডালসহ ৯ টি পণ্যে। সম্প্রতি সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বংলাদেশের (টিসিবি) প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

 

নগরীর খাতুনগঞ্জ, রিয়াজউদ্দিন বাজার, বহদ্দারহাট, চকবাজারসহ  কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বাজার পর্যবেক্ষণ করে এই তথ্যের সত্যতা মিলেছে।

 

টিসিবির তথ্য অনুযায়ী, গেল এক সপ্তাহে পাইজাম ও লতা বা মাঝারি মানের চালের মূল্য বেড়েছে ২ দশমিক ৯৭ শতাংশ। এর মাধ্যমে পাইজাম ও লতা চালের দাম বেড়ে ৫০ থেকে ৫৪ টাকা টাকা হয়েছে। চিনির দাম ১ দশমিক ৬০ শতাংশ বেড়ে ৬২ থেকে ৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

 

তবে সরকার আলুর দাম ২ দফায় বেঁধে দিলেও কাজে আসছে না। গত এক সপ্তাহে আলুর দাম আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। সপ্তাহের ব্যবধানে ৪ দশমিক ৪৪ শতাংশ বেড়ে প্রতি কেজি আলু ৪৪ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, বলে জানিয়েছে টিসিবি।

 

এদিকে চাল, চিনির বাড়তি মূল্যের সাথে বৃদ্ধি পেয়েছে সব ধরনের সয়াবিন তেলের দাম। লুজ সয়াবিন তেলের মূল্য সপ্তাহের ব্যবধানে ৬ দশমিক ১৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ১০২ থেকে ১০৪ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এক লিটার বোতলের সয়াবিন তেলের দাম ৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ বেড়ে ১১০ থেকে ১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর পাঁচ লিটার বোতলের সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৫২৫ টাকা। এতে সপ্তাহের ব্যবধানে মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে দশমিক ৯৯ শতাংশ।

 

অন্যদিকে গত এক সপ্তাহে সব থেকে বেশি মূল্য কমেছে আমদানি করা পেঁয়াজের। বাজারে আমদানি করা পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকা। আমদানি করা রসুনের দাম ৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ কমে কেজি ৮০-৯০ টাকা হয়েছে। এলাচের দাম ৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ কমে কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৪০০ থেকে ৩২০০ টাকা।

 

এছাড়া দাম কমার এ তালিকায় রয়েছে মসুর ও মুগ ডাল। মাঝারি দানার মসুর ডালের দাম ৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ কমে কেজি ৮০-৯০ টাকা হয়েছে। ছোট দানার মসুর ডাল বিক্রি হচ্ছে ১০০-১১০ টাকা। এতে সপ্তাহের ব্যবধানে দাম কমেছে ৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ। আর মুগ ডালের দাম ১১ দশমিক ৫৪ শতাংশ কমে কেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১৩০ টাকা।