রাত ২:৩৫ - ৬ই জুলাই, ২০২০ ইং

চবি’র ল্যাবে ৮১ নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত ৭৮, ফলাফলে শঙ্কা

চবি’র ল্যাবে ৮১ নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত ৭৮, ফলাফলে শঙ্কা

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ল্যাবে করোনাভাইরাস নমুনা শনাক্তকরণ পরীক্ষার প্রথমদিনের রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে। এতে ৮১টি নমুনা পরীক্ষা করে ৭৮ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়।

শুক্রবার (৫ জুন) থেকে জীববিজ্ঞান অনুষদের কেন্দ্রীয় জীববিজ্ঞান গবেষণাগার ল্যাবে করোনা শনাক্তকরণ পরীক্ষা শুরু হয়। সে অনুযায়ী পরীক্ষা কেন্দ্র হতে শুক্রবার রাত ৯টা ২০মিনিটে একদিনের রিপোর্ট প্রদান করা হয়।

এতে শুধু হাটহাজারী থেকে প্রেরিত ৮১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়, যার মধ্যে ৭৮ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়।  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ও করোনভাইরাস ডিটেকশন কমিটির সদস্য এস এম মনিরুল হাসান।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো এক হাজার কিট ‘ত্রুটিপূর্ণ’ থাকায় বৃহস্পতিবার আমরা তা ফেরত দিয়েছি। একইদিন নতুন ৫০০ কিট স্বাস্থ্য অধিদফতর আমাদের কাছে হস্তান্তর করে। আমরা গত সোমবার হাটহাজারী থেকে পাঠানো ৮১টি নমুনা আজ (শুক্রবার) পরীক্ষা করি। এতে ৭৮ টি পজিটিভ পাই।

নমুনা পরীক্ষার চেয়ে আক্রান্তের হার বেশি হওয়ায় ফলাফল নিয়ে সংশয় থাকবে কিনা এমন প্রশ্নের জাবাবে প্রক্টর বলেন, নমুনা যাদের সংগ্রহ করা হয়েছে তাদের সকলেরই উপসর্গ আছে। আমরা সতর্কতার সাথে নমুনাগুলো পরীক্ষা করে রিপোর্ট প্রকাশ করছি।

এদিকে হাটহাজারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে পাঠানো তথ্য মতে, গত ৩ এপ্রিল থেকে হাটহাজারীতে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা শুরু হয়। এ পর্যন্ত ওই উপজেলয় ৮৬৬টি নমুনা পরীক্ষায় ১৬৬ জনের করোনা পজিটিভ আসে। যা শতকার হিসেবে ২৪ শতাংশ। আজ একদিনে হাঠাৎ করে বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৮১ টি নমুনা পরীক্ষায় ৭৮টা পজিটিভকে সন্দেহজনক বলে শংঙ্কা প্রকাশ করেছেন হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ রুহুল আমিন।

তিনি বলেন, ‘গত দুইমাসে আমাদের উপজেলার আক্রান্তের হার অনুযায়ী আজকের ৮১টির মধ্যে ৭৮টা পজিটিভ আসা সন্দেহজনক। আমি উপজেলা স্বাস্থ্য অফিসারের সাথে কথা বলেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবে করোনা পরীক্ষার ফলাফলটা পুনরায় রি-চেক করতে অনুরোধ করেছি।’

এর আগে ২৭ মে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান অনুষদের কেন্দ্রীয় জীববিজ্ঞান গবেষণাগারে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণের জন্য নমুনা পরীক্ষা করার অনুমতি দেয় স্বাস্থ্য অধিদফতর। এরপর গত বুধবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের পাঠানো পরীক্ষার জন্য কিটগুলো মেশিনে দেওয়া হলে সব নমুনার ফলাফলই পজিটিভ আসছিল। এতে সংশ্নিষ্টদের মধ্যে সন্দেহ দেখা দিলে পরীক্ষার মাধ্যমে কিটে ত্রুটি আছে বলে দাবি করে কর্তৃপক্ষ। পরেরদিন বৃহস্পতিবার ত্রুটিপূর্ণ কিটগুলো স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিকট ফেরত পাঠানো হয়। গতকাল নতুন কিটে আবারও পরীক্ষা শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।