রাত ৩:১৮ - ২৮শে মে, ২০২০ ইং

খাগড়াছড়িতে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত ২১ শিশু

খাগড়াছড়িতে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত ২১ শিশু

খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত ২১ শিশুকে সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় উদ্ধার করে অসুস্থ অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এদের মধ্যে ৩ জনের ঠান্ডাজনিত সমস্যা থাকলেও বাকিদের হাম রোগের লক্ষণ রয়েছে। আক্রান্ত সবাই দীঘিনালা উপজেলার দূর্গম রথিচন্দ্র কার্বারী পাড়ার বাসিন্দা। এর আগে ৯ শিশুকে এলাকায় চিকিৎসাধীন ছিল। তাদের প্রত্যেকের বয়স ১০ বছরের নিচে।

গত কয়েকদিন ধরে দীঘিনালার দূর্গম রথী চন্দ্র কার্বারী পাড়াসহ আশপাশের এলাকার শিশুরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাদের জ্বর ও শরীরে লাল লাল দাগ রয়েছে।

সেনাবাহিনীর দীঘিনালা জোনের চিকিৎসক ক্যাপ্টেন ডা. আহসান হাবিব নোমান জানান, সোমবার সকাল থেকে দূর্গম রথিচন্দ্র কার্বারি পাড়া ও আশপাশের এলাকা থেকে আক্রান্ত শিশুদের গাড়িতে করে উপজেলা হাসপাতালে আনা হয়। সেখানেই তাদের চিকিৎসা চলছে।

আক্রান্ত শিশুদের হাম রোগের লক্ষণ রয়েছে। সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে শিশুদের চিকিৎসা ও তাদের স্বজনদের খাবার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

দীঘিনালা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা তনয় তালুকদার বলেন, ভর্তি হওয়া শিশুদের মধ্যে তিনজনের ঠান্ডাজনিত সমস্যা রয়েছে। বাকিদের হামের লক্ষণ থাকলেও পরীক্ষা ছাড়া তা নিশ্চিত করে বলা যাবে না। আমরা তাদের চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছি। এছাড়া ঐ এলাকায় যাতে হামের প্রাদুর্ভার ছড়াতে না পারে সেজন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এর আগে গত শনিবার অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় রথিচন্দ্র কার্বারী পাড়ার ৯ বছরের শিশু ধনিতা ত্রিপুরা (৯)। ওইদিন দুপুরে গুরতর অবস্থায় দীঘিনালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অপর এক শিশুকে ভর্তি করা হয়।

খাগড়াছড়ির সিভিল সার্জন নুপুর কান্তি দাশ জানিয়েছেন, গত কয়েকদিন ধরে দুটি মেডিকেল টিমের সদস্যরা অর্ধশতাধিক শিশুর চিকিৎসা দিয়েছেন। এরমধ্যে শুধুমাত্র ২/৩জন শিশুর মধ্যে হামের লক্ষণ ধরা পড়েছে। মূলত অপুষ্টির কারণে শিশুরা অসুস্থ হচ্ছে। এছাড়া স্থানীয়রা কুসংস্কার ও টিকাভীতির কারনে সমস্যা দেখা দিয়েছে।



-->