রাত ৪:১৩ - ২৮শে মে, ২০২০ ইং

করোনায় বন্ধ দেশের ৮৭ শতাংশ শিল্প-কারখানা

করোনায় বন্ধ দেশের ৮৭ শতাংশ শিল্প-কারখানা
বাংলাদেশের শিল্প অধ্যুষিত এলাকাগুলোর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ঢাকার পার্শ্ববর্তী আশুলিয়া। বস্ত্র-পোশাক, চামড়াজাত পণ্য, ওষুধ, ফার্নিচার, প্লাস্টিকসহ সব মিলিয়ে আশুলিয়া এলাকায় শিল্প-কারখানা আছে ১ হাজার ৩৫৬টি। মহামারী করোনা ভাইরাস আতঙ্কে এর মধ্যে ১ হাজার ২৯৫টি কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে। সচল আছে ৬১টি কারখানা।
দেশে শিল্প অধ্যুষিত এলাকা আছে মোট ছয়টি। সব খাত মিলিয়ে এ এলাকাগুলোতে শিল্প-কারখানা আছে ৭ হাজার ৪০৮টি। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সূত্র বলছে, এর মধ্যে ৬ হাজার ৪২৩টি বা ৮৭ শতাংশ শিল্প-কারখানাই বন্ধ ছিল রোববার (২৯ মার্চ)। সচল ছিল ৯৮৫টি।
করোনাভাইরাস আতঙ্ক ও কাজের সংকট এ দুই কারণেই শিল্প-কারখানাগুলো বন্ধ হয়ে গেছে বলে। আর যেসব কারখানা চালু আছে, সেগুলোর কাজ আছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

আশুলিয়ায় মোট ১ হাজার ৩৫৬টি কারখানার মধ্যে বস্ত্র ও পোশাক খাতের সংগঠন বিজিএমইএ, বিকেএমইএ ও বিটিএমএর সদস্য কারখানার সংখ্যা ৫২৭টি, যার মধ্যে বন্ধ রয়েছে ৫০১টি।
গাজীপুরে মোট কারখানা আছে ২ হাজার ৭২টি। এর মধ্যে বন্ধ হয়েছে ১ হাজার ৫৫৬টি। এ এলাকায় বস্ত্র ও পোশাক খাতের সংগঠনগুলোর সদস্য কারখানা আছে ১ হাজার ৮৫টি। এসব কারখানার মধ্যে বন্ধ ৮৯৪টি।
চট্টগ্রামে মোট শিল্প-কারখানা আছে ১ হাজার ৩৫টি। এর মধ্যে বন্ধ ৮৭৫টি। এ এলাকায় সংশ্লিষ্ট সংগঠনের সদস্য বস্ত্র ও পোশাক খাতের কারখানা আছে ৪৩১টি। এর মধ্যে গতকাল বন্ধ ছিল ৩৯৮টি।
নারায়ণগঞ্জে মোট শিল্প-কারখানা আছে ২ হাজার ৪৫৯টি। এর মধ্যে বন্ধ হয়েছে ২ হাজার ৩৩১টি। এ এলাকায় বস্ত্র ও পোশাক কারখানা আছে ১ হাজার ২৪২টি। যার মধ্যে বন্ধ ১ হাজার ১৯৫টি।
ময়মনসিংহে মোট শিল্প-কারখানা আছে ১৩১টি। যার মধ্যে বন্ধ ৮৮টি। এ এলাকায় বস্ত্র ও পোশাক কারখানা আছে ৭২টি। গতকাল বন্ধ ছিল ৭০টি।
শিল্প পুলিশ-৬ বা খুলনায় মোট শিল্প-কারখানা আছে ৩৫৫টি, যার মধ্যে বন্ধ ২৭৮টি। খুলনা এলাকায় বস্ত্র ও পোশাক কারখানা আছে নয়টি, যার সবগুলোই বন্ধ।
শিল্প খাত ও সরকারি সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, অধিকাংশ শিল্প-কারখানা করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখিয়েই বন্ধ হয়েছে। ২৬ মার্চ কারখানা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত বিবেচনায় নিতে পোশাক শিল্প মালিকদের প্রতি অনুরোধ জানায় সংশ্লিষ্ট সংগঠন বিজিএমইএ। আরেক সংগঠন বিকেএমইএও গতকাল নিট পোশাক কারখানা মালিকদের প্রতি বন্ধের নির্দেশনা জারি করে। কিন্তু তার পরও সচল থাকছে পোশাকসহ কিছু শিল্প-কারখানা।
জানা গেছে, পোশাক খাতসংশ্লিষ্ট দুই সংগঠনের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হলেও অনেক শিল্প মালিকই তার পোশাক কারখানা সচল রাখতে আগ্রহী। কারণ তাদের ক্রয়াদেশ বহাল আছে।
আবার কিছু কারখানা আছে যারা করোনা ভাইরাস সংক্রমণের বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে ব্যক্তিগত সুরক্ষা পোশাকের (পিপিই) আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় ক্রয়াদেশ পাচ্ছে। এ প্রেক্ষাপটেই মূলত কাজ আছে এমন কারখানাগুলোর মালিক করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে শ্রমিকের সুরক্ষা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা সাপেক্ষে কারখানা সচল রাখছেন।
ঢাকার পার্শ্ববর্তী শিল্প এলাকার কিছু পোশাক কারখানা ৩১ মার্চ পর্যন্ত সচল রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মালিকরা। এছাড়া যেসব কারখানা পিপিইর ক্রয়াদেশ পাচ্ছে, সেগুলো সচল রাখার বিষয়ে সরকারেরও কোনো আপত্তি নেই।


-->