রাত ২:৫৪ - ১৭ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং

পাকিস্তানে সেনা অভ্যুত্থানের আশঙ্কা!

print

সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের করুণ বিদায়ের পর ক্ষমতায় আসা ইমরান খানের সঙ্গে সেনাবাহিনীর সম্পর্ক ভালো বলেই শোনা যায়। দুই দশক পর আবারো কি তবে পাকিস্তানে সেনা অভ্যুত্থানের ঘটনা ঘটতে যাচ্ছে?

তবে চলতি সপ্তাহে দু’টি পদক্ষেপ নিয়েছেন পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া। আর তাতে অন্তত সেনা অভ্যুত্থানের আশঙ্কা করছে কূটনৈতিকরা।

জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর ১১১ ব্রিগেডের ছুটি বাতিলের নির্দেশ দিয়েছেন সেনাপ্রধান জেনারেল বাজওয়া। ওই বাহিনীর জওয়ানদের শিগগিরই কাজে যোগ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এখন পর্যন্ত মোট চারবার সেনাবাহিনীর দ্বারা সরকারের পতন ঘটেছে পাকিস্তানে। ১৯৫৮ সালে, ১৯৬৯ সালে, ১৯৭৭ সালে এবং ১৯৯৯ এ। এর মধ্যে দুই বার সেনাবাহিনীর ১১১ ব্রিগেডকে ব্যবহার করে সরকারের পতন ঘটানো হয়েছে।

ওই ব্রিগেডকে ব্যবহার করেই ১৯৫৮ সালে প্রথমবার তৎকালীন রাষ্ট্রপতি তথা সাবেক মেজর জেনারেল ইসকান্দার মির্জাকে পদচ্যুত করেন তৎকালীন সেনাপ্রধান ইয়াকুব খান। ২১ বছর পর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলি ভুট্টোর নেতৃত্বাধীন সরকারের পতন ঘটান সেনাপ্রধান জিয়া-উল-হক।

এদিকে বুধবার পাকিস্তানের শিল্পপতিদের সঙ্গে বৈঠক করেন জেনারেল বাজওয়া। সেই বৈঠকে ডাক পাননি ইমরান খান। ওই বৈঠকে বাজওয়া সে দেশের নামকরা শিল্পপতিদের সঙ্গে কথা বলেন। ভেঙে পড়া দেশের অর্থনীতির হাল ধরার অনুরোধ করেন তাদের। অকপটে স্বীকার করেন, পাকিস্তানের অর্থনৈতিক দুর্দশার শিকার হচ্ছে সেনাবাহিনী।

print