রাত ১২:৪১ - ৭ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

ঢাকা উত্তরে বজলুর-কচি, দক্ষিণে মান্নাফী-হুমায়ুন

print

দীর্ঘ সাত বছর পর আজ (শনিবার) অনুষ্ঠিত হলো ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন। ২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এর তিন বছর পর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে দুই ভাগে বিভক্ত করা হয়।

ঢাকা মহানগর উত্তর শাখা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে শেখ বজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে এস এ মান্নান কচি দায়িত্ব পেয়েছেন।

অন্যদিকে মহানগর দক্ষিণ শাখায় সভাপতি আবু আহাম্মদ মান্নাফী ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির দায়িত্ব পেয়েছেন।

শনিবার সকাল ১১টায় রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যোনে সম্মেলন উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথম পর্বের আনুষ্ঠানিকতা শেষে রাজধানীর রমনা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে নেতৃত্ব নির্বাচনের দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

শনিবার রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ শাখা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে তাদের নাম ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

 

শেখ বজলুর রহমান ঢাকা মহানগর উত্তর শাখা আওয়ামী লীগের সদ্যবিদায়ী কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। এস এম মান্নান কচি মহানগর উত্তর শাখা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

আবু আহম্মদ মান্নাফী ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার বিদায়ী কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। হুমায়ুন কবির বিদায়ী কমিটির নির্বাহী সদস্য ছিলেন।

২০১৬ সালের ১০ এপ্রিল মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর-দক্ষিণ, ৪৫টি থানা এবং ১০০টি ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

print