রাত ৩:১৭ - ১৭ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং

জি কে শামীমের বিরুদ্ধে পাহাড়ে জমি দখল করে বিলাসবহুল রিসোর্ট নির্মাণে বিনিয়োগের অভিযোগ

print

ঢাকায় র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমের বিরুদ্ধে বান্দরবানে পাহাড়ি জমি দখল করে কোটি টাকা বিনিয়োগে বিলাসবহুল পর্যটন রিসোর্ট ‘সিলভান ওয়াই রি‌সোর্ট অ্যান্ড স্পা লিমিডেট” নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে।

জানা ‌গে‌ছে, বান্দরবান শহর থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরে চিম্বুক সড়কের পাশে মিলনছ‌ড়িতে প্রায় ৫০ একর জায়গা জুড়ে বিলাসবহুল এই রিসোর্টটি নির্মাণে ব্যয় করা হ‌চ্ছে প্রায় ২০০ কো‌টি টাকা। রিসোর্টটির মালিকানায় র‌য়ে‌ছেন ৯ জন। এরম‌ধ্যে জি কে শামীম অন্যতম শেয়ার হোল্ডার।

জানা ‌গে‌ছে, প্রথম পর্যায়ে ১০ কোটি টাকার বিনিয়োগ দিয়ে রিসোর্টের প্রাথ‌মিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। নির্মাণ কর্মকাণ্ডের নিরাপত্তায় একটি পুলিশ ক্যাম্পও করে দেওয়া হচ্ছে অংশীদার‌দের নিজস্ব অর্থায়নে।

অভি‌যোগ উঠেছে, মারমা, ত্রিপুরা, বমসহ স্থানীয় পাহাড়ি সম্প্রদায়ের প্রায় ক‌য়েক একর জমি দখলে নি‌য়ে এ রিসোর্টটি তৈরি করা হচ্ছে। অবশ্য বান্দরবান জেলা প্রশাসন এসব অভিযোগ খতিয়ে দেখছে।

রিসোর্টটির অন্যতম পরিচালক ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন মন্টু যুবলীগ নেতা জি কে শামীমের শেয়ারের কথা স্বীকার করে ব‌লেন, ‘প্রথম পর্যায়ে ‌জি‌ কে শামীম এই প্রকল্পে প্রায় দুই কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন। তবে পাঁচ তারকা মানের রিসোর্টটিতে বিনিয়োগ দাঁড়াবে প্রায় ২০০ কোটি টাকা। সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, ব্যাংককের প্রকৌশলীরা রিসোর্টের ডিজাইন করেছেন। মূল কাজের দায়িত্বে আছে বাংলাদেশ প্রকৌশলী বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)। রিসোর্টটিতে আধুনিক সুইমিং পুল, বিভিন্ন রাইডার, ওয়াটার ওয়ার্ল্ড ও স্পা ছাড়াও পাঁচ তারকা মানের হোটেলের নানা সুবিধা থাকবে।’

স্থানীয় পাহাড়ি সম্প্রদায়ের জায়গা দখলের অভিযোগের বিষয়টি ভিত্তিহীন উল্লেখ করে জসিম উদ্দিন মন্টু বলেন, ‘সরকারি নিয়ম মেনে পাহাড়ি সম্প্রদায়সহ বিভিন্ন জনের কাছ থেকে জায়গাগুলো কেনা হয়েছে। কোনও জায়গা দখল করা হয়নি বরং স্থানীয় পাহাড়িদের আরও কীভাবে সুবিধা দেওয়া যায় সেই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

এই রিসোর্টের বিরুদ্ধে জায়গা দখলের অভিযোগের বিষয়ে বান্দরবানের জেলা প্রশাসক দাউদুল ইসলাম বলেন, ‘অভিযোগ পাওয়ার পরই তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। তদন্তের পরই প্রশাসন পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে।’

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর গুলশানের নিকেতনের নিজ কার্যালয় থেকে যুবলীগের কেন্দ্রীয় সমবায় বিষয়ক সম্পাদক জি কে শামীমকে গ্রেফতার করে র‍্যাব। এসময় তার অফিস থেকে বিপুল পরিমাণ নগদ অর্থ, এফডিআর, মদ, অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। একই সঙ্গে শামীমের সাত জন দেহরক্ষীকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করা হয়। এরপরই বান্দরবানের বিলাসবহুল রিসোর্টে জি কে শামীমের বিনিয়োগের খবরটি আলোচনায় উঠে আসে।

print